ভো’দর এ’মন হিং’স্র হয়! সা’মান্য ভো’দরের কাছে প’রাজিত হলো বাঘ, ভি’ডিও তু’মুল ভা’ইরাল

ভোঁদড় বা উদবিড়াল কয়েক ধরনের আধা জলচর (এবং একটি ক্ষেত্রে জলচর) প্রধাণত মৎস্যভূক স্তন্যপায়ী প্রাণী।ভোঁদড় বলতে মুস্টিলিডি (Mustelidae) গোত্রের লুট্রিনি (Lutrinae) উপগোত্রের প্রাণীগু’লোকে বোঝায়,যার মধ্যে আরও আছে উদবিড়াল, নেউল বা বেজি, ব্যাজার ই’ত্যাদি। বাংলাদেশে ভোঁদড়ের তিনটি প্রজাতি এবং ব্যাজারের একটি প্রজাতি দেখা যায়।

ভোঁদড় সাধারণত লি’প্ত পদী[১], মানে হাঁসের পায়ের মতো আঙ্গু’লগু’লো পাতলা পর্দা দিয়ে জোড়া লাগানো থাকে।[২] এদের লেজ মোটা আকারের এবং শরীর লম্বাটে গড়নের। বেশিরভাগেরই পায়ে ধা’রালো নখযুক্ত থাবা আছে।

সাঁতার কা’টার সময়ে ভোঁদড়ের নাক ও কানের ফুটো বন্ধ থাকে। এদের নাকের ডগায় লম্বা গোঁফের মতো খাড়া লোম থাকে। এই গোঁফ সংবেদনশীল বলে জলের নিচে শি’কার ধরতে ভোঁদড়কে সহায়তা করে।[১]

এদের গোঁফ যেহেতু খাড়া, তাই জলে ভিজে গায়ে লেপ্টে যায় না, ঘোলা জলে এই স্পর্শকাতর গোঁফ শি’কারের উপস্থিতি জানান দেয়। নোখহীন ভোঁদড়ের হাত-পায়ের পাতাও খুব স্পর্শকাতর।

ফলে কাদায় লুকানো ঝিনুক, শামুক, চিংড়ি, কাঁকড়া এদের হাত থেকে রক্ষা পায় না। এদের শক্তিশালী ছুঁচালো দাঁত আর মাড়ি পিচ্ছিল শি’কার ধরতে বা মাছের মুড়ো চিবোতে অত্যন্ত কার্যকর।[২]

ভোঁদড়ের দে’হে দুই স্তর লোম রয়েছে। প্রথম স্তর আকারে ছোট[২], কোমল এবং তাপরোধী। এই অন্তঃলোম বাতাস ধরে রেখে জলের নিচে এদের দে’হ উষ্ণ ও শুকনো রাখে।[১] এই লোমগু’লো জলরোধী। দ্বিতীয় স্তরের লোম লম্বা।

এই লোমই আমা’দের চোখে পড়ে, এগু’লো জলে ভিজে ওঠে। এদের লেজ চ্যাপ্টা, ১০ থেকে ১২ ইঞ্চি (মাথা থেকে লেজ পর্যন্ত ১৮ থেকে ২২ ইঞ্চি) লম্বা। নৌকার দাঁড়ের মতো হাত-পা (পা হাতের চেয়ে বড়), শক্ত খাড়া গোঁফ জলে শি’কার করার অত্যন্ত উপযোগী।

[২] ভোঁদড় লি’প্ত পদী বলে জলের নিচে খুব ভালো সাঁতার কাটতে পারে এবং জলের উপরে মাথা না তুলে একবারে প্রায় আধা কিলোমিটার যেতে পারে।[১] ভোঁদড় বা উদবড়ালের গন্ধ ‘বিকট একপ্রকার গন্ধ রয়েছে; অ’ভিজ্ঞজনেরাও এ গন্ধকে বাঘের গন্ধ বলে ভুল করতে পারেন। ভোঁদড়েরা দলবেঁধে থাকলে প্রচন্ড চেঁচায়।
অধিকাংশ সময় এরা বাচ্চা সাথে নিয়ে শি’কার খোঁজে। ভোঁদড়-গোত্রের অন্যান্য প্রাণীরা নিশাচর হলেও ভোঁদড় সব সময়ই কর্মতৎপর।[২]

উত্তর প্রশান্ত মহাসাগরের সামুদ্রিক ভোঁদড় পাথরকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে পারে। এরা সামনের পা দিয়ে পাথর টেনে তুলে তার সহায়তায় শামুক,

https://youtu.be/gYIIKunyLRk

About admin

Check Also

প্রায় ৩৩ বছর ধরে নিজের বাড়ি মনে করে স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে সমগ্র রায়গঞ্জ শহরকে পরিচ্ছন্ন করেন এই বৃদ্ধ!

আমাদের আশেপাশের পরিবেশের চোখ রাখলে আপনারা এমন অনেক ব্যক্তি দেখতে পারবেন যারা ক্রমাগত পরিবেশকে নানান …

Leave a Reply

Your email address will not be published.