‘অবিকল মানুষের মতো দেখতে শিশু’র জন্ম দিলো ছাগল!

মানুষের মতো দেখতে অবিকল শিশুর জন্ম দিয়েছে এক ছাগল! অবিশ্বাস্য এই ঘটনা ঘিরে শুরু হয়েছে হইচই। এই ঘটনা ভারতের আসাম রাজ্যের চাছার জেলায়।

ঘটনার বিস্তারিত সম্পর্কে জানা যায়, ওই অঞ্চলের এক ব্যক্তির পোষা ছাগল গত সোমবার সকালে সন্তান প্রসব করে। জানা যায়, সদ্যোজাত ওই প্রাণীটির মুখ ছিল হুবহু মানব শিশুর মতো। ছিল চোখ, ঠোঁট, নাক! তবে কান দুটি ছিল ছাগলের মতোই। পা মাত্র দুটি। ছিল না লেজ।

এমন বিষয়টি জানাজানি হতেই তীব্র চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। সেটিকে দেখতে দূর-দূরান্তের গ্রামবাসীরাও ছুটে যান।দেশটির বিশেষজ্ঞদের কথায়, আসলে এই শাবকটি জন্মগত ভাবেই অস্বাভাবিক। তিনি জানিয়েছেন, এই ধরনের পশুরা বেশিদিন বাঁচে না।

একে সৃষ্টিকর্তার আশীর্বাদ ভাবার কোনও কারণ নেই। জন্মগত কারণে একে এমন দেখতে। এর সঙ্গে দেবত্বের কোনও সম্পর্ক নেই।তবে তিনি একথা বললেও গ্রামবাসীদের মধ্যে কৌতূহলের অন্ত নেই। তারা লাইন দিয়ে দেখে যাচ্ছেন ছাগশিশুটিকে।

মানুষের মতো দেখতে অবিকল শিশুর জন্ম দিয়েছে এক ছাগল! অবিশ্বাস্য এই ঘটনা ঘিরে শুরু হয়েছে হইচই। এই ঘটনা ভারতের আসাম রাজ্যের চাছার জেলায়।

ঘটনার বিস্তারিত সম্পর্কে জানা যায়, ওই অঞ্চলের এক ব্যক্তির পোষা ছাগল গত সোমবার সকালে সন্তান প্রসব করে। জানা যায়, সদ্যোজাত ওই প্রাণীটির মুখ ছিল হুবহু মানব শিশুর মতো। ছিল চোখ, ঠোঁট, নাক! তবে কান দুটি ছিল ছাগলের মতোই। পা মাত্র দুটি। ছিল না লেজ।

এমন বিষয়টি জানাজানি হতেই তীব্র চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। সেটিকে দেখতে দূর-দূরান্তের গ্রামবাসীরাও ছুটে যান।দেশটির বিশেষজ্ঞদের কথায়, আসলে এই শাবকটি জন্মগত ভাবেই অস্বাভাবিক। তিনি জানিয়েছেন, এই ধরনের পশুরা বেশিদিন বাঁচে না।

একে সৃষ্টিকর্তার আশীর্বাদ ভাবার কোনও কারণ নেই। জন্মগত কারণে একে এমন দেখতে। এর সঙ্গে দেবত্বের কোনও সম্পর্ক নেই।তবে তিনি একথা বললেও গ্রামবাসীদের মধ্যে কৌতূহলের অন্ত নেই। তারা লাইন দিয়ে দেখে যাচ্ছেন ছাগশিশুটিকে।

মানুষের মতো দেখতে অবিকল শিশুর জন্ম দিয়েছে এক ছাগল! অবিশ্বাস্য এই ঘটনা ঘিরে শুরু হয়েছে হইচই। এই ঘটনা ভারতের আসাম রাজ্যের চাছার জেলায়।

ঘটনার বিস্তারিত সম্পর্কে জানা যায়, ওই অঞ্চলের এক ব্যক্তির পোষা ছাগল গত সোমবার সকালে সন্তান প্রসব করে। জানা যায়, সদ্যোজাত ওই প্রাণীটির মুখ ছিল হুবহু মানব শিশুর মতো। ছিল চোখ, ঠোঁট, নাক! তবে কান দুটি ছিল ছাগলের মতোই। পা মাত্র দুটি। ছিল না লেজ।

এমন বিষয়টি জানাজানি হতেই তীব্র চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। সেটিকে দেখতে দূর-দূরান্তের গ্রামবাসীরাও ছুটে যান।দেশটির বিশেষজ্ঞদের কথায়, আসলে এই শাবকটি জন্মগত ভাবেই অস্বাভাবিক। তিনি জানিয়েছেন, এই ধরনের পশুরা বেশিদিন বাঁচে না।

একে সৃষ্টিকর্তার আশীর্বাদ ভাবার কোনও কারণ নেই। জন্মগত কারণে একে এমন দেখতে। এর সঙ্গে দেবত্বের কোনও সম্পর্ক নেই।তবে তিনি একথা বললেও গ্রামবাসীদের মধ্যে কৌতূহলের অন্ত নেই। তারা লাইন দিয়ে দেখে যাচ্ছেন ছাগশিশুটিকে।

তথ্যসূত্র: ইন্ডিয়া টাইমস, ইন্ডিয়া টুডে

About admin

Check Also

একদিনের তেল দিয়ে দু’দিন খাবেন: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

খোলাবাজারে সয়াবিন তেলের লাগামহীন মূল্যবৃদ্ধির প্রেক্ষিতে একদিনের তেল দিয়ে দু’দিন খাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব …

Leave a Reply

Your email address will not be published.