বি’য়ের পর সিদ্ধান্ত নিয়েছি আর সিনেমা করব না…

বিয়ের পর সিদ্ধন্তি নিয়েছি আর সিনেমা করব না। আমার এখন দুই সন্তান, তাদের নিয়েই সব সময় ব্যস্ত থাকতে হয়। পরিবারের সবাইকে নিয়ে যেন সুখে-শান্তিতে বসবাস করতে পারি সেজন্য সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন গণমাধ্যমকে এসব কথা বলেন চিত্রনায়িকা ময়ূরী।

শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) বাংলাদেশ চলচিত্র সমিতির দ্বিবার্ষিক নির্বাচন উপলক্ষে এফডিসি আসেন ময়ূরী। পছন্দের প্রার্থীদের ভোট দিয়েছেন। এসময় তিনি বলেন, বলেন, এফডিসি নির্বাচন উপলক্ষ্যে অনেকের সঙ্গে দেখা হয়েছে, কথা হয়েছে, এটা অনেক ভালো লাগছে। আসলে সিনেমা তো অন্যরকম ভালো লাগার জায়গা, তাই এফডিসিতে বারবার আসতেই ভালো লাগে।

এফডিসিতে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ভোটগ্রহণ শুরু হয় শুক্রবার সকাল ৯টায়। ভোট চলে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। পছন্দের প্রার্থীদের ভোট দিয়ে ময়ূরী নিজের বর্তমান অবস্থার কথা জানান। তিনি এখন টুকটাক স্টেজ শো করেন। এরপরও ভাল আছে, তার ফ্ল্যাট ও গাড়ি রয়েছে বলে জানান।

উল্লেখ্য, ১৯৯৮ সালে মাহমুদ নামক একজন প্রযোজকের হাত ধরে মৃত্যুর মুখে চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অভিনয়-জগতে পা রাখেন ময়ূরী। এরপর তার অভিনয় জীবন খুব দ্রুতগতিতেই এগিয়ে চলে সামনের দিকে। একের পর এক সিনেমায় বাজিমাত করে প্রচুর নাম কামান তিনি।

তিনি নারগিস আক্তার পরিচালিত চার সতীনের ঘর চলচ্চিত্রে অভিনেতা আলমগীরের স্ত্রীর ভূমিকায় অভিনয় করে খ্যাতি অর্জন করেন। কর্মজীবনে নিউ অপেরা সার্কাস নামে একটি সার্কাস দলের সদস্য ছিলেন তিনি।

ময়ূরীর উল্লেখযোগ্য সিনেমা গুলো হলো-মগের মুল্লক (১৯৯৯), কে আমার বাবা (১৯৯৯) ,হিরা চুনি পান্না (২০০০),দুজন দুজনার (২০০০),কুখ্যাত খুনি (২০০০), ভয়ংকর সন্ত্রাসী (২০০১), রংবাজ বাদশাহ (২০০১), ঢাকাইয়া মাস্তান (২০০২), আরমান (২০০২), মাস্তানের উপর মাস্তান(২০০২), আঘাত পাল্টা আঘাত (২০০২),কেয়ামত (২০০৩) সহ প্রায় ৩০৩টি ছবিতে অভিনয় করেন।

বিয়ের পর সিদ্ধন্তি নিয়েছি আর সিনেমা করব না। আমার এখন দুই সন্তান, তাদের নিয়েই সব সময় ব্যস্ত থাকতে হয়। পরিবারের সবাইকে নিয়ে যেন সুখে-শান্তিতে বসবাস করতে পারি সেজন্য সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন গণমাধ্যমকে এসব কথা বলেন চিত্রনায়িকা ময়ূরী।

শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) বাংলাদেশ চলচিত্র সমিতির দ্বিবার্ষিক নির্বাচন উপলক্ষে এফডিসি আসেন ময়ূরী। পছন্দের প্রার্থীদের ভোট দিয়েছেন। এসময় তিনি বলেন, বলেন, এফডিসি নির্বাচন উপলক্ষ্যে অনেকের সঙ্গে দেখা হয়েছে, কথা হয়েছে, এটা অনেক ভালো লাগছে। আসলে সিনেমা তো অন্যরকম ভালো লাগার জায়গা, তাই এফডিসিতে বারবার আসতেই ভালো লাগে।

এফডিসিতে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ভোটগ্রহণ শুরু হয় শুক্রবার সকাল ৯টায়। ভোট চলে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। পছন্দের প্রার্থীদের ভোট দিয়ে ময়ূরী নিজের বর্তমান অবস্থার কথা জানান। তিনি এখন টুকটাক স্টেজ শো করেন। এরপরও ভাল আছে, তার ফ্ল্যাট ও গাড়ি রয়েছে বলে জানান।

উল্লেখ্য, ১৯৯৮ সালে মাহমুদ নামক একজন প্রযোজকের হাত ধরে মৃত্যুর মুখে চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অভিনয়-জগতে পা রাখেন ময়ূরী। এরপর তার অভিনয় জীবন খুব দ্রুতগতিতেই এগিয়ে চলে সামনের দিকে। একের পর এক সিনেমায় বাজিমাত করে প্রচুর নাম কামান তিনি।

তিনি নারগিস আক্তার পরিচালিত চার সতীনের ঘর চলচ্চিত্রে অভিনেতা আলমগীরের স্ত্রীর ভূমিকায় অভিনয় করে খ্যাতি অর্জন করেন। কর্মজীবনে নিউ অপেরা সার্কাস নামে একটি সার্কাস দলের সদস্য ছিলেন তিনি।

ময়ূরীর উল্লেখযোগ্য সিনেমা গুলো হলো-মগের মুল্লক (১৯৯৯), কে আমার বাবা (১৯৯৯) ,হিরা চুনি পান্না (২০০০),দুজন দুজনার (২০০০),কুখ্যাত খুনি (২০০০), ভয়ংকর সন্ত্রাসী (২০০১), রংবাজ বাদশাহ (২০০১), ঢাকাইয়া মাস্তান (২০০২), আরমান (২০০২), মাস্তানের উপর মাস্তান(২০০২), আঘাত পাল্টা আঘাত (২০০২),কেয়ামত (২০০৩) সহ প্রায় ৩০৩টি ছবিতে অভিনয় করেন।

About admin

Check Also

বা’সর রা’তে সে এ’মন ভাবে ক’রবে আ’মি বি’শ্বাস ক’রতে পা’রছি না, ছিঃ…

বাসর রাত। সবার জীবনে এই রাতটি নাকি অনেক স্বপ্নের, অনেক আশার। ওসব ভাবনার নিকুচি করে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.