আমি যদি মুখ খুলি জায়েদ মুখ দেখাতে পারবে না: পপি

আমি যদি জায়েদের বিষয়ে মুখ খুলি তা’হলে সে মুখ দেখাতে পারবে না বলে মন্তব্য করেছেন চিত্র নায়িক পপি। এক’টি জাতীয় দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এমন মন্তব্য করেছেন তিনি। প’পি বলেন, এফডিসিতে কী হচ্ছে এটা তো গণমাধ্যমের বরাতে দেশের সবাই জান’তে পারছেন।‌

এখানে ক্রাইসিস কী নিয়েএটাও সবার জানা। তবে আ’মি মনে করি,এখানে সবচেয়ে বড় ক্রাইসিস হচ্ছে সম্পর্কে’র। আগে কত সুন্দর দিন কাটাচ্ছিলাম আমরা। মান্না ভাই, ওমর সা’নী ভাই, রিয়াজ, ফেরদৌস, শাকিব খান,

মৌসুমী, শাবনূর, পূর্ণিমা, সবাই নি’জ নিজ অবস্থান থেকে ইন্ডাস্ট্রিকে লিড দিয়েছেন। তখন আমাদের মধ্যে ভা’লো কাজের প্রতিযোগিতা থাকলেও কারও সঙ্গে কোনো রেষারেষি ছিল না। কে’উ কারও পেছনে লাগেনি।

কারও আড়ালে কারও বদনাম হতো না। সে’ই গোছানো সম্পর্কগুলো নষ্ট করে দিলো জায়েদ। সে শিল্পী সমিতির চেয়া’রে বসার পরই শুরু হলো একে অপরে দ্বন্দ্ব। অযোগ্য লোককে চেয়ারে বসা’লে যা হয়। এর-ওর মধ্যে বিরুদ্ধে লাগিয়ে সবাইকে ব্যস্ত বানিয়ে নিজে চেয়া’রের জায়গাটা শক্ত করে নিতে চাচ্ছিলো সে। কিন্তু অযোগ্য লোক বেশি’দিন থাকতে পারে না।

তার পতন হবেই। পপি আরও বলেন, এর আগে এক ইন্টারভিউ’তে কেন আমরা জায়েদকে চেয়ারে বসিয়েছি সেটা বলেছি। সেটা অনেক’টা শাকিব খানের ওপর অভিমান করেই। এটাই আমাদের ভু’ল ছিল। এই ভুলের খেসরাত যে এভাবে দিতে হবে বুঝিনি। এই সমিতির নে’তার চেয়ারে বসে সে যে ক্রাইমগুলো করেছে তা বর্ণনা’তীত।

সে ক্রাইমের অনেক কিছুই আপ’নারা জানেন না। সেগুলো বলার মতোও না। তাই বলি, আমি যদি জায়ে’দের বিষয়ে মুখ খুলি তাহলে সে মুখ দেখাতে পারবে না।‌ শুধু বলবো, যার এক’টাও হিট ছবি নেই, অভিনেতা হিসেব দর্শকরা যাকে চিনেই না, সেই কি’না রিয়াজ, ফেরদৌস ভাইকে নিয়ে কটু কথা বলে। তাদের নিয়ে সমা’লোচনা করে। ওমর সানী ভাই”কে সে মানসিক ডাক্তার দেখাতে বলে।

এখানে ক্রাইসিস কী নিয়েএটাও সবার জানা। তবে আ’মি মনে করি,এখানে সবচেয়ে বড় ক্রাইসিস হচ্ছে সম্পর্কে’র। আগে কত সুন্দর দিন কাটাচ্ছিলাম আমরা। মান্না ভাই, ওমর সা’নী ভাই, রিয়াজ, ফেরদৌস, শাকিব খান,

মৌসুমী, শাবনূর, পূর্ণিমা, সবাই নি’জ নিজ অবস্থান থেকে ইন্ডাস্ট্রিকে লিড দিয়েছেন। তখন আমাদের মধ্যে ভা’লো কাজের প্রতিযোগিতা থাকলেও কারও সঙ্গে কোনো রেষারেষি ছিল না। কে’উ কারও পেছনে লাগেনি।

কারও আড়ালে কারও বদনাম হতো না। সে’ই গোছানো সম্পর্কগুলো নষ্ট করে দিলো জায়েদ। সে শিল্পী সমিতির চেয়া’রে বসার পরই শুরু হলো একে অপরে দ্বন্দ্ব। অযোগ্য লোককে চেয়ারে বসা’লে যা হয়। এর-ওর মধ্যে বিরুদ্ধে লাগিয়ে সবাইকে ব্যস্ত বানিয়ে নিজে চেয়া’রের জায়গাটা শক্ত করে নিতে চাচ্ছিলো সে। কিন্তু অযোগ্য লোক বেশি’দিন থাকতে পারে না।

তার পতন হবেই। পপি আরও বলেন, এর আগে এক ইন্টারভিউ’তে কেন আমরা জায়েদকে চেয়ারে বসিয়েছি সেটা বলেছি। সেটা অনেক’টা শাকিব খানের ওপর অভিমান করেই। এটাই আমাদের ভু’ল ছিল। এই ভুলের খেসরাত যে এভাবে দিতে হবে বুঝিনি। এই সমিতির নে’তার চেয়ারে বসে সে যে ক্রাইমগুলো করেছে তা বর্ণনা’তীত।

About admin

Check Also

মা হব, সন্তানকে আদর করব, দারুণ অনুভূতি: পরীমণি

ঢাকাই সিনেমার আলোচিত নায়িকা পরীমনি। সবশেষ মুক্তি প্রাপ্ত সিনেমা ‘গুণিন’। এ ছাড়া, সবশেষ অভিনয় করেছেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published.