মাস গেলে ৪৫ হাজার টাকা বেতন! এদিকে ৮ এর নামতা বলতে পারছেন না সরকারি শিক্ষিকা, তুমুল ভাইরাল নেট দুনিয়া

সোস্যাল মিডিয়ায় এখন আশ্চর্যজনক ঘটনা দিলেই ভাইরাল হয়ে যায়। এখনকার যুগে প্রতিনিয়ত ভালো, খারাপ দুটোই সোস্যাল মিডিয়া তে সহজেই ভাইরাল হয়ে যায়। সেটা নাচ,গান,মাছ ধরা,সাপ ধরা,অ’শ্লীল ভিডিও মুহুর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায়। সোস্যাল মিডিয়ার বদলৌতে আমরা অনেক ভালো এবং

আশ্চর্যজনক ভিডিও দেখতে পাই। যেগুলো মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায়। ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের সম্পর্ক অত্যন্ত মধুর। কারণ, ছাত্রছাত্রীদের মনে শিক্ষক সম্পর্কে ভয়-ভীতি থাকলে পড়াশোনার ক্ষেত্রে তা প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে। আমাদের প্রত্যেকের বিদ্যালয়ে অনেক শিক্ষক থাকেন, তাঁরা প্রত্যেকেই

আমাদের শিক্ষাদানের মধ্য দিয়ে জীবনের সঠিক পথ প্রদর্শনে সহয়তা করেন। তাঁরা প্রত্যেকেই আমাদের কাছে সমান শ্রদ্ধেয়। কিন্তু প্রত্যেক শিক্ষার্থীর অন্তরে একজন কোনো শিক্ষকের জন্য বিশেষ স্থান থাকে। কিন্তু সেই শিক্ষক বা শিক্ষিকা যদি গোড়ায় গলদ থাকে, তাহলে ছাত্র-ছাত্রীদের ভবিষ্যত যে একেবারেই রসাতলে যেতে বাধ্য,

তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। সাম্প্রতিক সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে ভাইরাল হয়েছে একটি ভিডিও। ভিডিওটি দেখে চক্ষু চড়কগাছ হয়ে যেতে বাধ্য শিক্ষিত সমাজের।

এই ভিডিওটি বিহার রাজ্যের সরকারি স্কুলের পুরো শিক্ষা ব্যবস্থাকে তুলে ধরেছে। প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষিকা হলেও ছাত্র ছাত্রীদের শিক্ষা দিতে ব্যর্থ তিনি। কারণ মাত্র ৮ এর ঘরের নামতা বলতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন ওই শিক্ষিকা। মাস গেলে হাজার হাজার টাকা মাইনে পাচ্ছেন তিনি। কিন্তু পড়াশোনা করানোর বেলায় অষ্টরম্ভা।

সোস্যাল মিডিয়ায় এখন আশ্চর্যজনক ঘটনা দিলেই ভাইরাল হয়ে যায়। এখনকার যুগে প্রতিনিয়ত ভালো, খারাপ দুটোই সোস্যাল মিডিয়া তে সহজেই ভাইরাল হয়ে যায়। সেটা নাচ,গান,মাছ ধরা,সাপ ধরা,অ’শ্লীল ভিডিও মুহুর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায়। সোস্যাল মিডিয়ার বদলৌতে আমরা অনেক ভালো এবং

আশ্চর্যজনক ভিডিও দেখতে পাই। যেগুলো মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায়। ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের সম্পর্ক অত্যন্ত মধুর। কারণ, ছাত্রছাত্রীদের মনে শিক্ষক সম্পর্কে ভয়-ভীতি থাকলে পড়াশোনার ক্ষেত্রে তা প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে। আমাদের প্রত্যেকের বিদ্যালয়ে অনেক শিক্ষক থাকেন, তাঁরা প্রত্যেকেই

আমাদের শিক্ষাদানের মধ্য দিয়ে জীবনের সঠিক পথ প্রদর্শনে সহয়তা করেন। তাঁরা প্রত্যেকেই আমাদের কাছে সমান শ্রদ্ধেয়। কিন্তু প্রত্যেক শিক্ষার্থীর অন্তরে একজন কোনো শিক্ষকের জন্য বিশেষ স্থান থাকে। কিন্তু সেই শিক্ষক বা শিক্ষিকা যদি গোড়ায় গলদ থাকে, তাহলে ছাত্র-ছাত্রীদের ভবিষ্যত যে একেবারেই রসাতলে যেতে বাধ্য,

তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। সাম্প্রতিক সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে ভাইরাল হয়েছে একটি ভিডিও। ভিডিওটি দেখে চক্ষু চড়কগাছ হয়ে যেতে বাধ্য শিক্ষিত সমাজের।

এই ভিডিওটি বিহার রাজ্যের সরকারি স্কুলের পুরো শিক্ষা ব্যবস্থাকে তুলে ধরেছে। প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষিকা হলেও ছাত্র ছাত্রীদের শিক্ষা দিতে ব্যর্থ তিনি। কারণ মাত্র ৮ এর ঘরের নামতা বলতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন ওই শিক্ষিকা। মাস গেলে হাজার হাজার টাকা মাইনে পাচ্ছেন তিনি। কিন্তু পড়াশোনা করানোর বেলায় অষ্টরম্ভা।

About admin

Check Also

৩ কিলোমিটার পায়ে হেঁটে টিউশনি করা মেয়েটাই আজ ম্যাজিস্ট্রেট

ক্লাস এইট পর্যন্ত কোনো শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়েননি শিল্পী মোদক। মা-ই ছিলেন তার শিক্ষক।হবিগঞ্জের রামকৃষ্ণ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.