অবাধ্য বউকে ‘আলতো করে’ পেটানোর পরামর্শ নারী মন্ত্রীর

অবাধ্য স্ত্রীকে ‘সবক’ বা শেখাতে আলতো করে পিটুনি দেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন মালয়েশিয়ার নারী ও পরিবার কল্যাণ বিষয়ক উপমন্ত্রী সিতি জাইলাহ মোহাম্মদ ইউসুফ। তিনি বলেছেন, ‘স্বামীর উচিত স্ত্রীকে বুঝিয়ে দেওয়া যে, তিনি প্রয়োজনে কঠিন হতে পারেন। স্ত্রীর চারিত্রিক পরিবর্তন চাইলে সেটাও স্বামীর বুঝিয়ে দেওয়া উচিত।’ ইনস্টাগ্রামে এক ভিডিও পোস্ট করে এ পরামর্শ দেন তিনি। খবর ডেইলি মেইলের।

দুই মিনিটের ওই ভিডিওতে জাইলাহ ইউসুফ আরও বলেন, যেসব নারী স্বামীর অবাধ্য, কথা শুনে না, তাদের শাসন করা উচিত স্বামীর। শাসনেও যদি কাজ না হয় তবে তিন দিন আলাদা শোয়া উচিত।

এরপরও যদি স্ত্রী স্বামীর বাধ্য না হয় তবে গায়ে হাত দিতে পারেন স্বামী। তবে অল্প মারধরও করতে পারেন। এর ফলে স্ত্রী অনুভব করবেন, স্বভাব পরিবর্তন না হলে স্বামী কতটা কঠিন রূপ ধারণ করতে পারেন।

ভিডিওতে নারীদের প্রতি মন্ত্রী পরামর্শ দেন, স্বামী অনুমতি দিলেই কেবল তার সঙ্গে কোনো বিষয়ে কথা বলা উচিত। তিনি আরও বলেন, স্বামীর মন বুঝে তাঁর খাওয়াদাওয়া শেষ হওয়ার পর, যখন স্বামী অবসর সময় কাটাচ্ছেন, তখন তাঁর সঙ্গে কথা বলুন। কোনো বিষয় তোলার আগে অনুমতি চেয়ে নেবেন।

এদিকে সিতি জাইলাহর এই ভিডিও বার্তার তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন নেটিজেনরা। নেটিজেনদের মতে, একজন নারীর মানবাধিকার নিয়েই প্রশ্ন তুলে দিয়েছেন ইউসুফ। তবে শুধু নেটিজেনরাই নয়, মালয়েশিয়ার একটি মানবাধিকার সংগঠন ও নারী অধিকার নিয়ে কাজ করা একাধিক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাও ওই ভিডিও বার্তার নিন্দা জানিয়ে মন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেছেন।

অবাধ্য স্ত্রীকে ‘সবক’ বা শেখাতে আলতো করে পিটুনি দেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন মালয়েশিয়ার নারী ও পরিবার কল্যাণ বিষয়ক উপমন্ত্রী সিতি জাইলাহ মোহাম্মদ ইউসুফ। তিনি বলেছেন, ‘স্বামীর উচিত স্ত্রীকে বুঝিয়ে দেওয়া যে, তিনি প্রয়োজনে কঠিন হতে পারেন। স্ত্রীর চারিত্রিক পরিবর্তন চাইলে সেটাও স্বামীর বুঝিয়ে দেওয়া উচিত।’ ইনস্টাগ্রামে এক ভিডিও পোস্ট করে এ পরামর্শ দেন তিনি। খবর ডেইলি মেইলের।

দুই মিনিটের ওই ভিডিওতে জাইলাহ ইউসুফ আরও বলেন, যেসব নারী স্বামীর অবাধ্য, কথা শুনে না, তাদের শাসন করা উচিত স্বামীর। শাসনেও যদি কাজ না হয় তবে তিন দিন আলাদা শোয়া উচিত।

এরপরও যদি স্ত্রী স্বামীর বাধ্য না হয় তবে গায়ে হাত দিতে পারেন স্বামী। তবে অল্প মারধরও করতে পারেন। এর ফলে স্ত্রী অনুভব করবেন, স্বভাব পরিবর্তন না হলে স্বামী কতটা কঠিন রূপ ধারণ করতে পারেন।

ভিডিওতে নারীদের প্রতি মন্ত্রী পরামর্শ দেন, স্বামী অনুমতি দিলেই কেবল তার সঙ্গে কোনো বিষয়ে কথা বলা উচিত। তিনি আরও বলেন, স্বামীর মন বুঝে তাঁর খাওয়াদাওয়া শেষ হওয়ার পর, যখন স্বামী অবসর সময় কাটাচ্ছেন, তখন তাঁর সঙ্গে কথা বলুন। কোনো বিষয় তোলার আগে অনুমতি চেয়ে নেবেন।

এদিকে সিতি জাইলাহর এই ভিডিও বার্তার তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন নেটিজেনরা। নেটিজেনদের মতে, একজন নারীর মানবাধিকার নিয়েই প্রশ্ন তুলে দিয়েছেন ইউসুফ। তবে শুধু নেটিজেনরাই নয়, মালয়েশিয়ার একটি মানবাধিকার সংগঠন ও নারী অধিকার নিয়ে কাজ করা একাধিক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাও ওই ভিডিও বার্তার নিন্দা জানিয়ে মন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেছেন।

About admin

Check Also

নিজ হাতে পবিত্র কাবা পরিষ্কার করলেন সৌদি যুবরাজ

এবার সৌদি আরবের মক্কা নগরীর গ্র্যান্ড মসজিদের পবিত্র কাবা শরীফ নিজ হাতে পরিষ্কার করেছেন সৌদি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.