আমার পোলার লাশটা কোন দিক দিয়া আইব: হাদিসুরের মা

আজ বেলা ১২টায় ‘এমভি_বাংলার_সমৃদ্ধি’র ২৮ নাবিকদের বহনকারী টার্কিস এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট ৭২২ হজরত শাহ’জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছালে সেখানে যান হাদি’সুরের বাবা-মা ও ভাই। ইউক্রেনের অলভিয়া বন্দরে রকেট হাম’লায় নিহত ‘এমভি_বাংলার সমৃদ্ধির থার্ড ইঞ্জিনিয়ার হাদিসুর রহমা’নের বৃদ্ধ বাবা-মা ও ভাইয়ের

আহাজারিতে ভারি হয়ে উঠেছে হজরত শাহ’জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এলাকা।‘এমভি_বাংলার_সমৃদ্ধি’ জাহাজ”টিতে মোট ২৯ জন নাবিক ছিলেন যার মধ্যে রাশিয়ার রকেট হা’মলায় নিহত হন হাদিসুর। এরপর সাগরের ওই বন্দর এলাকায় রাশিয়া মাইন পুঁতে রাখায় জাহাজ’টি বের করা যাচ্ছিল না। যুদ্ধ”ক্ষেত্রে গোলাগুলির মধ্যে নাবিক’দের প্রতিটি মুহূর্ত কাটে চরম

আতঙ্কে। এই অবস্থায় উদ্ধার পেতে সরকার, পররাষ্ট্র মন্ত্র’ণালয় ও বিএসসি’র প্রতি আকুতি জানান আটকে পড়া নাবি’কেরা। নানা প্রচেষ্টার পর প্রাণে বেঁচে ফেরা এই ২৮ নাবিক আজ দেশে ফি’রলেন। তাদের আসার খবর পেয়ে বিমানবন্দরে যান হাদিসুরের পরিবারের সদস্য’রাও। নাবিকরা যখন বিমান থেকে নেমে আসতে থাকেন তখন নিহত ছেলে’র জন্য আর্তনাদ করতে থাকেন হাদি’সুরের বাবা-মা।

এদিন বিমানবন্দরের সিআইপি গেটের বাইরে দাঁ’ড়ানো ছিল হাদিসুরের ছোট দুই ভাই’সহ বাবা, মা আর অন্য স্বজনেরা। ভেত’রের গেটে মেজ ভাই গোলাম মাওলা প্রিন্সকে উদ্ভ্রান্তের মতো ছুটতে দেখা গে’ল দুপুর ১টার দিকে।গণমাধ্যমকর্মীদের ধরে ধরে প্রিন্স অভি’যোগ করছিলেন, ‘ভাই, বিমানবন্দরের কর্তৃপক্ষ আমাদের জানাই’তেছে না

আমার ভাইয়ের লাশ কোনো দিক দিয়া আ’নবে। আমার বাবা-মায়ে অপেক্ষা করছে, জানতে চাইতেছে। আমি জবাব দিতে পার’তেছি না।’ তৃষ্ণায় ঠোঁট চাটতে চাটতে একটু পানি পানের অনুরোধ জা’নান প্রিন্স। পানি পানের পরেই, ‘আমারে নিয়ে আমার ভাইয়ের কত স্ব’প্ন আছিল’ বলেই লুটিয়ে পড়লেন মাটিতে। এরপর বুক চাপড়ে অস্পষ্ট স্বরে আর্ত’নাদ আর গড়াগড়ি।

আজ বেলা ১২টায় ‘এমভি_বাংলার_সমৃদ্ধি’র ২৮ নাবিকদের বহনকারী টার্কিস এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট ৭২২ হজরত শাহ’জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছালে সেখানে যান হাদি’সুরের বাবা-মা ও ভাই। ইউক্রেনের অলভিয়া বন্দরে রকেট হাম’লায় নিহত ‘এমভি_বাংলার সমৃদ্ধির থার্ড ইঞ্জিনিয়ার হাদিসুর রহমা’নের বৃদ্ধ বাবা-মা ও ভাইয়ের

আহাজারিতে ভারি হয়ে উঠেছে হজরত শাহ’জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এলাকা।‘এমভি_বাংলার_সমৃদ্ধি’ জাহাজ”টিতে মোট ২৯ জন নাবিক ছিলেন যার মধ্যে রাশিয়ার রকেট হা’মলায় নিহত হন হাদিসুর। এরপর সাগরের ওই বন্দর এলাকায় রাশিয়া মাইন পুঁতে রাখায় জাহাজ’টি বের করা যাচ্ছিল না। যুদ্ধ”ক্ষেত্রে গোলাগুলির মধ্যে নাবিক’দের প্রতিটি মুহূর্ত কাটে চরম

আতঙ্কে। এই অবস্থায় উদ্ধার পেতে সরকার, পররাষ্ট্র মন্ত্র’ণালয় ও বিএসসি’র প্রতি আকুতি জানান আটকে পড়া নাবি’কেরা। নানা প্রচেষ্টার পর প্রাণে বেঁচে ফেরা এই ২৮ নাবিক আজ দেশে ফি’রলেন। তাদের আসার খবর পেয়ে বিমানবন্দরে যান হাদিসুরের পরিবারের সদস্য’রাও। নাবিকরা যখন বিমান থেকে নেমে আসতে থাকেন তখন নিহত ছেলে’র জন্য আর্তনাদ করতে থাকেন হাদি’সুরের বাবা-মা।

এদিন বিমানবন্দরের সিআইপি গেটের বাইরে দাঁ’ড়ানো ছিল হাদিসুরের ছোট দুই ভাই’সহ বাবা, মা আর অন্য স্বজনেরা। ভেত’রের গেটে মেজ ভাই গোলাম মাওলা প্রিন্সকে উদ্ভ্রান্তের মতো ছুটতে দেখা গে’ল দুপুর ১টার দিকে।গণমাধ্যমকর্মীদের ধরে ধরে প্রিন্স অভি’যোগ করছিলেন, ‘ভাই, বিমানবন্দরের কর্তৃপক্ষ আমাদের জানাই’তেছে না

আমার ভাইয়ের লাশ কোনো দিক দিয়া আ’নবে। আমার বাবা-মায়ে অপেক্ষা করছে, জানতে চাইতেছে। আমি জবাব দিতে পার’তেছি না।’ তৃষ্ণায় ঠোঁট চাটতে চাটতে একটু পানি পানের অনুরোধ জা’নান প্রিন্স। পানি পানের পরেই, ‘আমারে নিয়ে আমার ভাইয়ের কত স্ব’প্ন আছিল’ বলেই লুটিয়ে পড়লেন মাটিতে। এরপর বুক চাপড়ে অস্পষ্ট স্বরে আর্ত’নাদ আর গড়াগড়ি।

About admin

Check Also

শঙ্কামুক্ত বর-কনে, ক্ষণে ক্ষণে কেঁদে উঠছেন

রাজধানীর উত্তরায় বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট প্রকল্পের ফ্লাইওভারের ভায়াডাক্ট চাপায় পিষ্ট প্রাইভেটকারে বেঁচে যাওয়া নবদম্পতি শঙ্কামুক্ত …

Leave a Reply

Your email address will not be published.