দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক সিরিজ জয়

সেঞ্চুরিয়ানের সুপারস্পোর্ট পার্কে ইতিহাসটা লিখেই ফেললো টাইগাররা। দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো ওয়ানডে সিরিজ জিতে নিল মুশফিক-তামিমরা। যেই দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে কয়েকমাস আগেই নাকানি চুবানি খেয়েছে ভারতের মতো শক্তিশালী দল। সেই দলকেই মাস খানেক বাদে তাদেরই মাটিতে রীতিমতো উড়িয়ে দিল তামিম বাহিনী।

তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয়ের পর সিরিজ জয়ের হাতছানি দিচ্ছিল বাংলাদেশকে। পরের ম্যাচে প্রোটিয়ারা ঘুরে দাড়ালে তৃতীয় ওয়ানডে অলিখিত ফাইনালের মতোই দাড়ায়। সেই তৃতীয় ওয়ানডেতে বোলারদের দূর্দান্ত বোলিংয়ের পর তামিম-লিটনের অনবদ্য ব্যাটিংয়ে ৯ উইকেটের ব্যবধানে জয় পেয়েছে লাল-সবুজের বাংলাদেশ।

এর আগে তাসকিন আহমেদের বিধ্বংসী বোলিংয়ে সেঞ্চুরিয়ানে সুপার স্পোর্ট পার্কে ১৫৪ রানেই গুটিয়ে যায় স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। ৯ ওভারে ৩৫ রান খরচে ৫ উইকেট তুলে নিয়েছেন তাসকিন। জবাবে তামিম ইকবালের অপরাজিত ৮৭ ও লিটন দাসের ৪৮ রানে ভর করে ৯ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌছে যায় টাইগাররা।

সেঞ্চুরিয়ানের সুপারস্পোর্ট পার্কে ইতিহাসটা লিখেই ফেললো টাইগাররা। দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো ওয়ানডে সিরিজ জিতে নিল মুশফিক-তামিমরা। যেই দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে কয়েকমাস আগেই নাকানি চুবানি খেয়েছে ভারতের মতো শক্তিশালী দল। সেই দলকেই মাস খানেক বাদে তাদেরই মাটিতে রীতিমতো উড়িয়ে দিল তামিম বাহিনী।

তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয়ের পর সিরিজ জয়ের হাতছানি দিচ্ছিল বাংলাদেশকে। পরের ম্যাচে প্রোটিয়ারা ঘুরে দাড়ালে তৃতীয় ওয়ানডে অলিখিত ফাইনালের মতোই দাড়ায়। সেই তৃতীয় ওয়ানডেতে বোলারদের দূর্দান্ত বোলিংয়ের পর তামিম-লিটনের অনবদ্য ব্যাটিংয়ে ৯ উইকেটের ব্যবধানে জয় পেয়েছে লাল-সবুজের বাংলাদেশ।

এর আগে তাসকিন আহমেদের বিধ্বংসী বোলিংয়ে সেঞ্চুরিয়ানে সুপার স্পোর্ট পার্কে ১৫৪ রানেই গুটিয়ে যায় স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। ৯ ওভারে ৩৫ রান খরচে ৫ উইকেট তুলে নিয়েছেন তাসকিন। জবাবে তামিম ইকবালের অপরাজিত ৮৭ ও লিটন দাসের ৪৮ রানে ভর করে ৯ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌছে যায় টাইগাররা।

সেঞ্চুরিয়ানের সুপারস্পোর্ট পার্কে ইতিহাসটা লিখেই ফেললো টাইগাররা। দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো ওয়ানডে সিরিজ জিতে নিল মুশফিক-তামিমরা। যেই দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে কয়েকমাস আগেই নাকানি চুবানি খেয়েছে ভারতের মতো শক্তিশালী দল। সেই দলকেই মাস খানেক বাদে তাদেরই মাটিতে রীতিমতো উড়িয়ে দিল তামিম বাহিনী।

তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয়ের পর সিরিজ জয়ের হাতছানি দিচ্ছিল বাংলাদেশকে। পরের ম্যাচে প্রোটিয়ারা ঘুরে দাড়ালে তৃতীয় ওয়ানডে অলিখিত ফাইনালের মতোই দাড়ায়। সেই তৃতীয় ওয়ানডেতে বোলারদের দূর্দান্ত বোলিংয়ের পর তামিম-লিটনের অনবদ্য ব্যাটিংয়ে ৯ উইকেটের ব্যবধানে জয় পেয়েছে লাল-সবুজের বাংলাদেশ।

এর আগে তাসকিন আহমেদের বিধ্বংসী বোলিংয়ে সেঞ্চুরিয়ানে সুপার স্পোর্ট পার্কে ১৫৪ রানেই গুটিয়ে যায় স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। ৯ ওভারে ৩৫ রান খরচে ৫ উইকেট তুলে নিয়েছেন তাসকিন। জবাবে তামিম ইকবালের অপরাজিত ৮৭ ও লিটন দাসের ৪৮ রানে ভর করে ৯ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌছে যায় টাইগাররা।

About admin

Check Also

হাসিমুখেই বিদায় নেব, বিকল্প আছে তো: মুশির স্ত্রী

ওয়ানডে ফরম্যাচটে রান পাচ্ছিলেন মুশফিকুর রহিম। তবে টেস্ট এবং টি-২০ ফরম্যাটে রান খরা যাচ্ছিল তার। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.