রমজানে অন্য দেশে জিনিসপত্রের দাম কমে, আমাদের দেশে বাড়ে: শামীম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান বলেন, অনেকেই বোরকা পরে টিসিবির লাইনে দাঁড়িয়ে গেছে। এসব দেখে আমার লজ্জা হয়। পৃথিবীর অন্য দেশে রমজান মাস আসলে জিনিসপত্রের দাম কমে, আর আমাদের দেশে আমরা ব্যবসায়ীরা দাম বাড়ায়ে দেই।

তিনি বলেন, শামীম ওসমান ১ পয়সা হারাম খায় না। ২০০১ সালের পর আমি যখন দেশ ছেড়েছি আমার বড় ভাই আমার হাত ধরে কান্না করেছে; টাকা নাও, দোকানটা কিনে নাও। আমি নিইনি। দেশের বাইরে ১৮ ঘণ্টা কাজ করেছি। পিঠের চামড়া উঠে গেছে।

শুক্রবার (২৫ মার্চ) বিকেলে সিদ্ধিরগঞ্জের রেবতী মোহন পাইলট স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে নবীনবরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন শামীম ওসমান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তিনি।

নারায়ণগঞ্জের এই এমপি বলেন, আমার লজ্জা লাগে, যে লোক দেশটা স্বাধীন করেছিল সেই বঙ্গবন্ধুকে ব্রিটিশরা-পাকিস্তানিরা হত্যা করতে সাহস পায়নি তাদেরকে আমরা পুরো বংশসহ হত্যা করেছি। আমি দলকানা রাজনীতিবিদ না। আমি একটা জিনিস বুঝি, ভালোকে ভালো আর খারাপকে খারাপ বলবো।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ করে দেখে সবাই ভালো আর অন্য দল করে দেখে সবাই খারাপ তা না। ভালো মানুষের এখন বড় অভাব। একটা সময় ছিল রাজনীতি মানে মানুষ তাকিয়ে দেখতো কে রাজনীতিবিদ। তাকে সম্মান করে সালাম দিতো। এখন ভয়ে মানুষ সালাম দেয়। তবে সবাই এক না।

তিনি আরও বলেন, সামনে কঠিন সময় আসছে। রাজনীতি মুহূর্তে মুহূর্তে বদলাচ্ছে। বিশ্বে অস্থিরতা, যুদ্ধ চলছে। স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিকে এক হতে হবে। আঘাত আসবে এই শক্তিকে শেষ করতে। আমি শেখ হাসিনার জন্য দোয়া চাই। তার জন্য আজ বাংলাদেশ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান বলেন, অনেকেই বোরকা পরে টিসিবির লাইনে দাঁড়িয়ে গেছে। এসব দেখে আমার লজ্জা হয়। পৃথিবীর অন্য দেশে রমজান মাস আসলে জিনিসপত্রের দাম কমে, আর আমাদের দেশে আমরা ব্যবসায়ীরা দাম বাড়ায়ে দেই।

তিনি বলেন, শামীম ওসমান ১ পয়সা হারাম খায় না। ২০০১ সালের পর আমি যখন দেশ ছেড়েছি আমার বড় ভাই আমার হাত ধরে কান্না করেছে; টাকা নাও, দোকানটা কিনে নাও। আমি নিইনি। দেশের বাইরে ১৮ ঘণ্টা কাজ করেছি। পিঠের চামড়া উঠে গেছে।

শুক্রবার (২৫ মার্চ) বিকেলে সিদ্ধিরগঞ্জের রেবতী মোহন পাইলট স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে নবীনবরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন শামীম ওসমান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তিনি।

নারায়ণগঞ্জের এই এমপি বলেন, আমার লজ্জা লাগে, যে লোক দেশটা স্বাধীন করেছিল সেই বঙ্গবন্ধুকে ব্রিটিশরা-পাকিস্তানিরা হত্যা করতে সাহস পায়নি তাদেরকে আমরা পুরো বংশসহ হত্যা করেছি। আমি দলকানা রাজনীতিবিদ না। আমি একটা জিনিস বুঝি, ভালোকে ভালো আর খারাপকে খারাপ বলবো।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ করে দেখে সবাই ভালো আর অন্য দল করে দেখে সবাই খারাপ তা না। ভালো মানুষের এখন বড় অভাব। একটা সময় ছিল রাজনীতি মানে মানুষ তাকিয়ে দেখতো কে রাজনীতিবিদ। তাকে সম্মান করে সালাম দিতো। এখন ভয়ে মানুষ সালাম দেয়। তবে সবাই এক না।

তিনি আরও বলেন, সামনে কঠিন সময় আসছে। রাজনীতি মুহূর্তে মুহূর্তে বদলাচ্ছে। বিশ্বে অস্থিরতা, যুদ্ধ চলছে। স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিকে এক হতে হবে। আঘাত আসবে এই শক্তিকে শেষ করতে। আমি শেখ হাসিনার জন্য দোয়া চাই। তার জন্য আজ বাংলাদেশ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে।

About admin

Check Also

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের টাকার বিষয়ে সরকার কোনো তথ্য চায়নি: সুইস রাষ্ট্রদূত

এবার বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাথালি চুয়ার্ড বলেছেন, সুইস ব্যাংকের কাছে অর্থ জমা নিয়ে সুইজারল্যান্ড …

Leave a Reply

Your email address will not be published.