বুলিংয়ের শিকার হয়ে ফেসবুক থেকে ‘টিপ পরা’ ছবি সরালেন সাজু খাদেম

শিক্ষিকা কপালে টিপ পরে রাজধানীর ফার্মগেট এলাকা দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় লাঞ্ছিত ও হত্যাচেষ্টার মুখোমুখি হয়েছেন দাবি করে রোববার (৩ এপ্রিল) শেরেবাংলা নগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।

এদিকে, ছোট পর্দার অভিনেতা সাজু খাদেম টিপ পরে ফেসবুকে একটি ছবি পোস্ট করেন। কপালে টিপ লাগানো ছবি পোস্ট করে সাজু খাদেম ক্যাপশনে লেখেন, ‘লাল টিপ, লাল সূর্য।’ আর সেই পোস্টের পর বুলিংয়ের শিকার হচ্ছেন সাজু। বিষয়টিতে মনক্ষুণ্ন হয়ে এ অভিনেতা বললেন, আমাকে গালি দেওয়া হচ্ছে। পোস্ট করা সেই ছবিতে অসংখ্য নেতিবাচক ও তাকে আক্রমণ করে মন্তব্য দেখা গেছে।

সন্ধ্যার পর থেকে তার ফেসবুক পেইজে টিপ পরা ছবিটি দেখা যাচ্ছে না। তবে সে পোস্ট সরিয়ে ফেলা হলেও তার পেইজে বিভিন্ন পোস্টের নিছে সেই টিপ পরা ছবি দিয়ে নানান ধরনের মন্তব্য করছেন অনেকে।সেই ছবিতে অসংখ্য নেতিবাচক ও আক্রমণাত্মক মন্তব্যের কারণেই সরিয়ে ফেলা হয়েছে এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সামাজিক মাধ্যমে।

গত শনিবার (২ এপ্রিল) কর্মস্থলে যাওয়ার পথে হয়রানির শিকার হয়েছেন তেজগাঁও কলেজের এক প্রভাষক। তার অভিযোগ-রাজধানীর গ্রিন রোডের বাসা থেকে হেঁটে কলেজে যাওয়ার সময় হুট করে পাশ থেকে মধ্যবয়সী, লম্বা দাড়িওয়ালা একজন ‘টিপ পরছোস কেন’ বলেই বাজে গালি দেন তাকে।

সেই ব্যক্তির পরনে ছিলো পুলিশের পোশাক। প্রতিবাদ জানালে এক পর্যায়ে তার পায়ের ওপর দিয়ে বাইক চালিয়ে চলে যান অভিযুক্ত ওই ব্যক্তি। পরে এ ঘটনায় শেরে বাংলা নগর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই শিক্ষিকা।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন নাজেহাল হয়ে সাজু খাদেম বলেন, ‘একজন নারীর সঙ্গে অন্যায় আচরণ করা হয়েছে। তার পাশে দাঁড়ানো আমাদের কর্তব্য। এজন্য এভাবে প্রতিবাদ জানিয়েছি। কিন্তু আমার প্রতিবাদে মানুষ নানান রকম বাজে শব্দ ব্যবহার করে মন্তব্য করে আমাকে গালি দিচ্ছেন।

এ ধরনের নোংরা মানসিকতা যাদের, তাদের কী করা উচিত? তারাও তো ইভ টিজার।’‘যে মানুষগুলো এসব নোংরামি করছেন, তাদের আইনের আওতায় আনা উচিত। তারাই মানুষের ফেসবুক স্ট্যাটাসে বুলিং করছেন। তাদের বিরুদ্ধে সাইবার বুলিংয়ের মামলা হওয়া উচিত।’

সন্ধ্যার পর থেকে তার ফেসবুক পেইজে টিপ পরা ছবিটি দেখা যাচ্ছে না। তবে সে পোস্ট সরিয়ে ফেলা হলেও তার পেইজে বিভিন্ন পোস্টের নিছে সেই টিপ পরা ছবি দিয়ে নানান ধরনের মন্তব্য করছেন অনেকে।সেই ছবিতে অসংখ্য নেতিবাচক ও আক্রমণাত্মক মন্তব্যের কারণেই সরিয়ে ফেলা হয়েছে এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সামাজিক মাধ্যমে।

গত শনিবার (২ এপ্রিল) কর্মস্থলে যাওয়ার পথে হয়রানির শিকার হয়েছেন তেজগাঁও কলেজের এক প্রভাষক। তার অভিযোগ-রাজধানীর গ্রিন রোডের বাসা থেকে হেঁটে কলেজে যাওয়ার সময় হুট করে পাশ থেকে মধ্যবয়সী, লম্বা দাড়িওয়ালা একজন ‘টিপ পরছোস কেন’ বলেই বাজে গালি দেন তাকে।

সেই ব্যক্তির পরনে ছিলো পুলিশের পোশাক। প্রতিবাদ জানালে এক পর্যায়ে তার পায়ের ওপর দিয়ে বাইক চালিয়ে চলে যান অভিযুক্ত ওই ব্যক্তি। পরে এ ঘটনায় শেরে বাংলা নগর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই শিক্ষিকা।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন নাজেহাল হয়ে সাজু খাদেম বলেন, ‘একজন নারীর সঙ্গে অন্যায় আচরণ করা হয়েছে। তার পাশে দাঁড়ানো আমাদের কর্তব্য। এজন্য এভাবে প্রতিবাদ জানিয়েছি। কিন্তু আমার প্রতিবাদে মানুষ নানান রকম বাজে শব্দ ব্যবহার করে মন্তব্য করে আমাকে গালি দিচ্ছেন।

About admin

Check Also

মা হব, সন্তানকে আদর করব, দারুণ অনুভূতি: পরীমণি

ঢাকাই সিনেমার আলোচিত নায়িকা পরীমনি। সবশেষ মুক্তি প্রাপ্ত সিনেমা ‘গুণিন’। এ ছাড়া, সবশেষ অভিনয় করেছেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published.