ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে শিক্ষিকা বরখাস্ত

রমজানে প্রাথমিক স্কুলে ছুটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেসবুকে) গুজব ছড়ানোর অভিযোগে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে মানিকগঞ্জের একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকাকে।

শনিবার (২ এপ্রিল) দুপুরে বান্দুটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা শিপ্রা রানী সরকারকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে এমন তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তাপস কুমার অধিকারী গণমাধ্যমকে জানান, সরকারি সিদ্ধান্তের বিপরীতে অবস্থান নেওয়ায় তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। গত ২৯ মার্চ বহিষ্কার পত্রে স্বাক্ষর করেছেন।সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে,

ওই শিক্ষিকা তার নিজস্ব ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে গত ২৯ মার্চ প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর ছবিসহ স্ট্যাটাস দেন-অবশেষে প্রথম রোজা থেকেই সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা দিলেন দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি এ উদার সিদ্ধান্তের জন্য। প্রধানমন্ত্রী আপনার জয় হোক। আরও ধন্যবাদ জানাচ্ছি বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি

জনাব আতিকুর রহমান আতিক ভাইকে এ জয়ের পথের সারথির ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়ার জন্য।অথচ সরকারিভাবে প্রাথমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের কোনো সিদ্ধান হয়নি। যা নিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট দফতরে ব্যাপক মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া বান্দুটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শিপ্রা রানী সরকারের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তাপস কুমার অধিকারী বলেন,

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরকারের ভাবমূর্তি ও প্রাথমিক শিক্ষার ভাবমূর্তি অক্ষণ্ন রাখার স্বার্থে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খা ও আপিল) বিধান, ২০১৮ এর বিধি ১২ (১) এবং সরকারি চাকরি আইন, ২০১৮ এর ৩৯ ধারা মোতাবেক ওই শিক্ষিকাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

রমজানে প্রাথমিক স্কুলে ছুটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেসবুকে) গুজব ছড়ানোর অভিযোগে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে মানিকগঞ্জের একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকাকে।

শনিবার (২ এপ্রিল) দুপুরে বান্দুটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা শিপ্রা রানী সরকারকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে এমন তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তাপস কুমার অধিকারী গণমাধ্যমকে জানান, সরকারি সিদ্ধান্তের বিপরীতে অবস্থান নেওয়ায় তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। গত ২৯ মার্চ বহিষ্কার পত্রে স্বাক্ষর করেছেন।সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে,

ওই শিক্ষিকা তার নিজস্ব ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে গত ২৯ মার্চ প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর ছবিসহ স্ট্যাটাস দেন-অবশেষে প্রথম রোজা থেকেই সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা দিলেন দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি এ উদার সিদ্ধান্তের জন্য। প্রধানমন্ত্রী আপনার জয় হোক। আরও ধন্যবাদ জানাচ্ছি বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি

জনাব আতিকুর রহমান আতিক ভাইকে এ জয়ের পথের সারথির ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়ার জন্য।অথচ সরকারিভাবে প্রাথমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের কোনো সিদ্ধান হয়নি। যা নিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট দফতরে ব্যাপক মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া বান্দুটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শিপ্রা রানী সরকারের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তাপস কুমার অধিকারী বলেন,

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরকারের ভাবমূর্তি ও প্রাথমিক শিক্ষার ভাবমূর্তি অক্ষণ্ন রাখার স্বার্থে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খা ও আপিল) বিধান, ২০১৮ এর বিধি ১২ (১) এবং সরকারি চাকরি আইন, ২০১৮ এর ৩৯ ধারা মোতাবেক ওই শিক্ষিকাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

About admin

Check Also

শঙ্কামুক্ত বর-কনে, ক্ষণে ক্ষণে কেঁদে উঠছেন

রাজধানীর উত্তরায় বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট প্রকল্পের ফ্লাইওভারের ভায়াডাক্ট চাপায় পিষ্ট প্রাইভেটকারে বেঁচে যাওয়া নবদম্পতি শঙ্কামুক্ত …

Leave a Reply

Your email address will not be published.