স্ত্রীকে শ্লীলতাহানি, কারখানার জিএমের হাত কেটে দিলেন স্বামী

সাভারের আশুলিয়ায় এক নারী পোশাক শ্রমিককে শ্লীলতাহানির ঘটনায় কারখানার জেনারেল ম্যানেজারের হাতে ছুরিকাঘাত করেছে সেই নারীর স্বামী। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আশুলিয়ার পূর্ব নরসিংহপুর এলাকার আদিয়াত অ্যাপারেলস কারখানায় এ ঘটনা ঘটে। বুধবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন আশুলিয়া থানার এসআই ফরিদ।

আহত জিএম একে আজাদ (৫০) গত তিন দিন আগে ওই কারখানায় যোগদান করেন। যোগদান করেই তিনি নারী শ্রমিকদের হেনস্তা করা শুরু করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। ছুরিকাঘাত করা শ্রমিকের নাম বারেক (২৭)। তিনি ওই কারখানায় সুইং সেকশনের হেলপার হিসেবে কাজ করেন। তাঁর স্ত্রী একই কারখানায় ফোল্ডিংম্যান হিসেবে কাজ করেন।

কারখানার শ্রমিকেরা জানায়, মঙ্গলবার জিএম আজাদ কয়েকজন নারী শ্রমিকের শরীরে হাত দেন। এর মধ্যে বারেকের স্ত্রীও ছিলেন। পরে বারেককে তাঁর স্ত্রী ঘটনা খুলে বললে বারেক জিএমের চেম্বারে গিয়ে ঘটনা জানতে চায়। কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে হাতাহাতি হয়।

এ সময় গার্মেন্টসের কাজে ব্যবহৃত বারেকের হাতে থাকা একটি ধারালো চাকু দিয়ে জিএমের হাতে আঘাত করে। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে স্থানীয় নারী ও শিশু স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পাঠানো হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়।

কারখানার মালিক তামিম মাহমুদ বলেন, ‘ঘটনাটি আমি পরে শুনেছি। শ্রমিক কারখানার প্রশাসনকে না জানিয়ে নিজেই উত্তেজিত হয়ে এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে। আমরা বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছি।’

আশুলিয়া থানার এসআই ফরিদ জানান, ছুরিকাঘাতের ঘটনায় বারেক নামের একজনকে আটক করা হয়েছিল। আজ সকালে উভয় পক্ষ থানায় এসে কেউ মামলা করবে না মর্মে লিখিত দিয়ে আটককৃত বারেককে নিয়ে গেছে।

সাভারের আশুলিয়ায় এক নারী পোশাক শ্রমিককে শ্লীলতাহানির ঘটনায় কারখানার জেনারেল ম্যানেজারের হাতে ছুরিকাঘাত করেছে সেই নারীর স্বামী। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আশুলিয়ার পূর্ব নরসিংহপুর এলাকার আদিয়াত অ্যাপারেলস কারখানায় এ ঘটনা ঘটে। বুধবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন আশুলিয়া থানার এসআই ফরিদ।

আহত জিএম একে আজাদ (৫০) গত তিন দিন আগে ওই কারখানায় যোগদান করেন। যোগদান করেই তিনি নারী শ্রমিকদের হেনস্তা করা শুরু করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। ছুরিকাঘাত করা শ্রমিকের নাম বারেক (২৭)। তিনি ওই কারখানায় সুইং সেকশনের হেলপার হিসেবে কাজ করেন। তাঁর স্ত্রী একই কারখানায় ফোল্ডিংম্যান হিসেবে কাজ করেন।

কারখানার শ্রমিকেরা জানায়, মঙ্গলবার জিএম আজাদ কয়েকজন নারী শ্রমিকের শরীরে হাত দেন। এর মধ্যে বারেকের স্ত্রীও ছিলেন। পরে বারেককে তাঁর স্ত্রী ঘটনা খুলে বললে বারেক জিএমের চেম্বারে গিয়ে ঘটনা জানতে চায়। কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে হাতাহাতি হয়।

এ সময় গার্মেন্টসের কাজে ব্যবহৃত বারেকের হাতে থাকা একটি ধারালো চাকু দিয়ে জিএমের হাতে আঘাত করে। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে স্থানীয় নারী ও শিশু স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পাঠানো হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়।

কারখানার মালিক তামিম মাহমুদ বলেন, ‘ঘটনাটি আমি পরে শুনেছি। শ্রমিক কারখানার প্রশাসনকে না জানিয়ে নিজেই উত্তেজিত হয়ে এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে। আমরা বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছি।’

আশুলিয়া থানার এসআই ফরিদ জানান, ছুরিকাঘাতের ঘটনায় বারেক নামের একজনকে আটক করা হয়েছিল। আজ সকালে উভয় পক্ষ থানায় এসে কেউ মামলা করবে না মর্মে লিখিত দিয়ে আটককৃত বারেককে নিয়ে গেছে।

About admin

Check Also

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের টাকার বিষয়ে সরকার কোনো তথ্য চায়নি: সুইস রাষ্ট্রদূত

এবার বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাথালি চুয়ার্ড বলেছেন, সুইস ব্যাংকের কাছে অর্থ জমা নিয়ে সুইজারল্যান্ড …

Leave a Reply

Your email address will not be published.