ইমরানের ডাকে একযোগে দলের সব এমপির গণপদত্যাগ

পাকিস্তানের সদ্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের আইনপ্রণেতারা সোমবার দেশটির সংসদের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদ থেকে একযোগে পদত্যাগ করেছেন এবং নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের ভোট শুরুর আগে সংসদ থেকে বের হয়ে গেছেন। এর ফলে বিরোধী জোটের নেতা শাহবাজ শরীফ সংসদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন।

এর আগে জাতীয় পরিষদ ভবনে দলের এমপিদের সঙ্গে এক বৈঠকে জাতীয় পরিষদ থেকে নিজ দলের সব এমপিসহ পদত্যাগ এবং নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের জন্য পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের আজকের অধিবেশন বয়কটের ঘোষণা দেন ইমরান খান।

সোমবার অ্যাসেম্বলিতে পাকিস্তানের অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের ভোট হওয়ার আগেই জাতীয় পরিষদ ভবনে উপস্থিত হন সদ্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তারপর দলের সব এমপির সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি।

বৈঠকে দলীয় এমপিদের উদ্দেশে ইমরান খান বলেন, ‘আমরা কোনো পরিস্থিতিতেই আর জাতীয় পরিষদে অধিবেশনে বসব না। দলীয়ভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে, যারা নতুন সরকার গঠন করতে যাচ্ছে, তাদেরকে ধারাবাহিকভাবে চাপে রাখতে হবে। আর এই সিদ্ধান্তের অংশ হিসেবে আমরা সবাই পার্লামেন্ট থেকে পদত্যাগ করব’।

বৈঠকে অবশ্য বেশিরভাগ এমপিই প্রথম দিকে ইমরানের সিদ্ধান্তের বিপক্ষে অবস্থান নেন। তারা যুক্তি দেন- যদি পিটিআইয়ের এমপিরা পদত্যাগ করে, সেক্ষেত্রে মাঠ ফাঁকা হয়ে যাবে এবং বিরোধীদের জন্য আরও সুবিধা হবে। এক পর্যায়ে ইমরান বলেন,

‘আমি হব পদত্যাগ করা প্রথম এমপি এবং অন্য কেউ যদি পদত্যাগ করতে না চায়, তবুও আমি পদত্যাগ করব’। ইমরানের এই বক্তব্যের পর এমপিরা তার নির্দেশ মেনে নেন এবং বলেন যে,

এ ব্যাপারে দলনেতার নির্দেশ অনুযায়ীই পদক্ষেপ নেবেন তারা। ইমরান খানের এই ঘোষণার পরপরই ডেপুটি স্পিকার কাসিম সুরির সভাপতিত্বে নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের জন্য জাতীয় পরিষদের অধিবেশন শুরু হয়।

অধিবেশন শুরু হওয়ার পর পাকিস্তানের সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং ইমরান খানের দলের প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী শাহ মোহাম্মদ কোরেশি জানান, তারা গণহারে পদত্যাগ করবেন এবং নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের প্রক্রিয়ায় তারা অংশ নেবেন না। তার এ ঘোষণার পর ডেপুটি স্পিকার কাসের সুরিও অধিবেশন ছেড়ে বের হয়ে যান।

পরে মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) এর আয়াজ সাদিক তার স্থলাভিষিক্ত হন এবং নতুন প্রধানমন্ত্রীর জন্য ভোট শুরুর দায়িত্ব নেন। শাহ মোহাম্মদ কোরেশিকে নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য মনোনয়ন দিয়েছিল ইমরান খানের দল। কিন্তু তিনি ভোট শুরুর আগেই জাতীয় পরিষদ থেকে পদত্যাগ করায় এখন শেহবাজ শরীফ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন।

‘আমি হব পদত্যাগ করা প্রথম এমপি এবং অন্য কেউ যদি পদত্যাগ করতে না চায়, তবুও আমি পদত্যাগ করব’। ইমরানের এই বক্তব্যের পর এমপিরা তার নির্দেশ মেনে নেন এবং বলেন যে,

এ ব্যাপারে দলনেতার নির্দেশ অনুযায়ীই পদক্ষেপ নেবেন তারা। ইমরান খানের এই ঘোষণার পরপরই ডেপুটি স্পিকার কাসিম সুরির সভাপতিত্বে নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের জন্য জাতীয় পরিষদের অধিবেশন শুরু হয়।

অধিবেশন শুরু হওয়ার পর পাকিস্তানের সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং ইমরান খানের দলের প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী শাহ মোহাম্মদ কোরেশি জানান, তারা গণহারে পদত্যাগ করবেন এবং নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের প্রক্রিয়ায় তারা অংশ নেবেন না। তার এ ঘোষণার পর ডেপুটি স্পিকার কাসের সুরিও অধিবেশন ছেড়ে বের হয়ে যান

About admin

Check Also

বুকের ঘাম বিক্রি করে কোটিপতি অভিনেত্রী!(ভিডিও)

সূর্যের প্রখর রোদে বসে রয়েছেন লাস্যময়ী অভিনেত্রী। তাঁর পুরো শরীর ঘামে ভিজে যাচ্ছে। কিন্তু, এটাই …

Leave a Reply

Your email address will not be published.