চা’চির গো’সলের ভি’ডিও করে চা’চার কাছে টা’কা দাবি!

টাঙ্গাইলের বাসাইলে চাচির গোসলের ভিডিও ধারণ করে সেটি ছড়ানোর হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে শরিফুল ইসলাম শরীফ (২৮) নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে।বৃহস্পতিবার (১৯ মে) এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ওই নারী বাসাইল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মান্দারজানি গ্রামের জামাল মিয়ার ছেলে শরিফুল ইসলাম কৌশলে তার চাচির গোসলের নগ্ন ভিডিও ধারণ করেন। পরে ওই ভিডিও হৃদয় খান নামে একটি ইমো আইডি থেকে তার সৌদি প্রবাসী চাচাকে পাঠান এবং তার কাছে দুই লাখ টাকা দাবি করেন।

টাকা না দিলে ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেন।এরপর বিষয়টি সৌদি প্রবাসী চাচা তার স্ত্রীকে জানান। পরে ভুক্তভোগী চাচি বাদী হয়ে বাসাইল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, ভূক্তভোগী ওই নারীর গোসলখানাটি শরীফের ঘরের উত্তর দিকে অবস্থিত। আর গোসলখানাটির দরজা ঠিক মতো লাগে না। এ সুযোগে অভিযুক্ত শরীফ তার ঘর থেকে ভিডিওটি করেন।স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শরীফের বিরুদ্ধে ইতোপূর্বে চুরিসহ নানা অপকর্মে জড়িত থাকায় এলাকায় একাধিক গ্রাম সালিশ হয়েছে।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী ওই নারী (শরীফের চাচি) বলেন, শরিফ আগেও আমার ঘরে ঢুকে খাবারের সঙ্গে বিষাক্ত দ্রব্য মিশিয়ে আমাদের সবাইকে মেরে ফেলার চেষ্টা করেছিলেন। শুধুমাত্র ভাতিজা বলে এতোদিন সব অত্যাচার সহ্য করেছি। এবার তিনি (শরীফ) আমার মান সম্মান নষ্ট করার চেষ্টা করছেন। আমি তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

ভুক্তভোগী নারীর সৌদি প্রবাসী স্বামী (শরীফের চাচা) বাংলানিউজকে মুঠোফোনে বলেন, যে ইমো আইডি থেকে ভিডিওটি পাঠানো হয়েছে, সেই আইডি থেকে আমার ভাতিজা শরীফ আগেও যোগাযোগ করেছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত শরীফ বলেন, আমাদের বাড়িতে পুলিশ এসেছিল। আমি পুলিশকে আমার মোবাইল ফোন দিয়ে দিয়েছি। আমার চাচির সঙ্গে এমন কাজ আমি করতে পারি না। এ অভিযোগ ভিত্তিহীন।বাসাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ভূক্তভোগী ওই নারীর গোসলখানাটি শরীফের ঘরের উত্তর দিকে অবস্থিত। আর গোসলখানাটির দরজা ঠিক মতো লাগে না। এ সুযোগে অভিযুক্ত শরীফ তার ঘর থেকে ভিডিওটি করেন।স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শরীফের বিরুদ্ধে ইতোপূর্বে চুরিসহ নানা অপকর্মে জড়িত থাকায় এলাকায় একাধিক গ্রাম সালিশ হয়েছে।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী ওই নারী (শরীফের চাচি) বলেন, শরিফ আগেও আমার ঘরে ঢুকে খাবারের সঙ্গে বিষাক্ত দ্রব্য মিশিয়ে আমাদের সবাইকে মেরে ফেলার চেষ্টা করেছিলেন। শুধুমাত্র ভাতিজা বলে এতোদিন সব অত্যাচার সহ্য করেছি। এবার তিনি (শরীফ) আমার মান সম্মান নষ্ট করার চেষ্টা করছেন। আমি তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

ভুক্তভোগী নারীর সৌদি প্রবাসী স্বামী (শরীফের চাচা) বাংলানিউজকে মুঠোফোনে বলেন, যে ইমো আইডি থেকে ভিডিওটি পাঠানো হয়েছে, সেই আইডি থেকে আমার ভাতিজা শরীফ আগেও যোগাযোগ করেছে।

About admin

Check Also

শঙ্কামুক্ত বর-কনে, ক্ষণে ক্ষণে কেঁদে উঠছেন

রাজধানীর উত্তরায় বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট প্রকল্পের ফ্লাইওভারের ভায়াডাক্ট চাপায় পিষ্ট প্রাইভেটকারে বেঁচে যাওয়া নবদম্পতি শঙ্কামুক্ত …

Leave a Reply

Your email address will not be published.