হজ পালন করতে যুক্তরাজ্য থেকে হেঁটে রওয়ানা হলেন মক্কায়

পবিত্র হজ পালনের উদ্দেশ্যে পায়ে হেঁটে মক্কা যাওয়ার স্বপ্ন পূরণ করেছেন আদম মোহাম্মদ নামে একজন ব্রিটিশ নাগরিক। মঙ্গলবার (৫ জুলাই) আরব নিউজ এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।প্রতিবেদনে বলা হয়, ৫২ বছর বয়সী আদম নেদারল্যান্ডস, জার্মানি, চেক প্রজাতন্ত্র, হাঙ্গেরি, রোমানিয়া, বুলগেরিয়া, তুরস্ক,

লেবানন, সিরিয়া এবং জর্ডান হয়ে সৌদি আরবে পৌঁছেছেন। এ জন্য ১১ মাস ২৬ দিনে প্রায় সাড়ে ৬ হাজার কিলোমিটার পথ অতিক্রম করতে হয়েছে তাকে। তিনি দিনে গড়ে ১৭.৮ কিলোমিটার হেঁটে ২৬ জুন মক্কার আয়েশা মসজিদে পৌঁছেছিলেন। এ সময় পবিত্র নগরীতে তাকে স্বাগত জানান অসংখ্য হজযাত্রী, স্থানীয় বাসিন্দা ও আগেই উড়ে আসা তার দুই কন্যা।

আদম মোহাম্মদ বলেন, আমি আমার যাত্রা শেষ করতে পেরে খুব খুশি। আমি এই যাত্রাকে সম্ভব করার জন্য এবং হজ পালনে আমার সর্বকালের লক্ষ্য পূরণ করার জন্য আল্লাহর কাছে শুকরিয়া জানাব। এটা আমার জন্য সহজ যাত্রা ছিল না।

কিন্তু আল্লাহর জন্য এবং মানবতার খাতিরে আমাকে সবকিছু ত্যাগ করতে হয়েছে। সৌদি এবং অন্যান্য দেশের নাগরিকরা আমাকে স্বাগত জানিয়েছেন। তাদের উদারতা এবং ভালোবাসায় আমি অভিভূত। আমি হজ পালন করতে খুব আগ্রহী। কারণ, হজ পালন আমার সবচেয়ে বড় স্বপ্ন ছিল।

মোহাম্মদ বলেন, আমি একদিন পবিত্র কুরআন পাঠে ব্যস্ত ছিলাম। হঠাৎ একদিন ঘুম ভাঙার পর আমার ভেতরের কিছু একটা আমাকে বলল, আমার বাসা থেকে পায়ে হেঁটে মক্কায় যেতে। আমি সেই ডাক উপেক্ষা করতে পারিনি। মতিনি বলেন, আবহাওয়া এবং ভ্রমণ ব্যতীত,

মক্কা যাওয়ার পথে অন্য কোনো চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয়নি। এই যাত্রার সময় আমাকে অনেকে সাহায্য করেছে, কেউ আমার ট্রলি ঠেলে আবার কেউ খাবার এবং বিশ্রামের জায়গা দিয়ে।

ইউটিউব, ইনস্টাগ্রাম এবং টিকটক চ্যানেলের মাধ্যমে তার অভিজ্ঞতা নথিভুক্ত এবং লাইভ-স্ট্রিম করেছেন, পাশাপাশি শান্তি ও সমতার বার্তা ছড়িয়ে দিয়েছেন তিনি। মোহাম্মদ বলেন, তার এ যাত্রা খ্যাতির জন্য নয়, ধর্মের জন্য।

আদম মোহাম্মদ বলেন, আমি আমার যাত্রা শেষ করতে পেরে খুব খুশি। আমি এই যাত্রাকে সম্ভব করার জন্য এবং হজ পালনে আমার সর্বকালের লক্ষ্য পূরণ করার জন্য আল্লাহর কাছে শুকরিয়া জানাব। এটা আমার জন্য সহজ যাত্রা ছিল না।

কিন্তু আল্লাহর জন্য এবং মানবতার খাতিরে আমাকে সবকিছু ত্যাগ করতে হয়েছে। সৌদি এবং অন্যান্য দেশের নাগরিকরা আমাকে স্বাগত জানিয়েছেন। তাদের উদারতা এবং ভালোবাসায় আমি অভিভূত। আমি হজ পালন করতে খুব আগ্রহী। কারণ, হজ পালন আমার সবচেয়ে বড় স্বপ্ন ছিল।

মোহাম্মদ বলেন, আমি একদিন পবিত্র কুরআন পাঠে ব্যস্ত ছিলাম। হঠাৎ একদিন ঘুম ভাঙার পর আমার ভেতরের কিছু একটা আমাকে বলল, আমার বাসা থেকে পায়ে হেঁটে মক্কায় যেতে। আমি সেই ডাক উপেক্ষা করতে পারিনি। মতিনি বলেন, আবহাওয়া এবং ভ্রমণ ব্যতীত,

মক্কা যাওয়ার পথে অন্য কোনো চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয়নি। এই যাত্রার সময় আমাকে অনেকে সাহায্য করেছে, কেউ আমার ট্রলি ঠেলে আবার কেউ খাবার এবং বিশ্রামের জায়গা দিয়ে।
সূত্র : আরব নিউজ।

About admin

Check Also

ভারতবর্ষের প্রথম মসজিদ যা মহানবী (সা:) জীবিত থাকাকালেই নির্মিত হয়

চিরসবুজের এক রাজ্য ভারতের কেরালা। এই প্রদেশের কোদুঙ্গাল্লুর জেলার চেরামান জুমা মসজিদ ঘুরেফিরে দেখা কোনো …

Leave a Reply

Your email address will not be published.