নাড়ির টানে বাবার ভিটায় ওমর সানী

নব্বইয়ের দশকের ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ওমর সানী। দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে রুপালি জগতে তার পথচলা। তার অভিনীত অসংখ্য ব্যবসাসফল সিনেমা এখনো দর্শক মনে গেঁথে আছে।

১৯৬৯ সালের ৬ মে জন্মগ্রহণ করেন ওমর সানী। তার জন্ম, শৈশব, কৈশোর কেটেছে পুরাণ ঢাকার জিঞ্জিরা এবং কালীগঞ্জে। কিন্তু তার বাবার পৈতৃক নিবাস বরিশালের গৌরনদী উপজেলার মহিশা শরিকল গ্রামে। গত ১৩ আগস্ট বাবার বংশের আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে মহিশা শরিকল গ্রামে ছুটে গিয়েছিলেন ওমর সানী।

সেখানে বসবাসরত আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে সময় কাটান ওমর সানী। আর এ মুহূর্ত ফ্রেমবন্দি করতেও ভুল করেননি। তারই কিছু ছবি নিজের ফেসবুকে শেয়ার করেছেন এই অভিনেতা।

এ বিষয়ে ওমর সানী বলেন, ‘বাবার দেশ, বংশ, আত্মীয় বলে কথা। সবকিছু মিলিয়ে আমার সফর সঙ্গী হয়েছিলেন ‘ওমর সানী ফ্যান ক্লাব’-এর প্রেসিডেন্ট কিরন খান, সেক্রেটারি এস কে সুমন সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদী, আর হীরা।’

আত্মীয়-স্বজনদের কাছ থেকে বিদায় নেওয়া কষ্টের। তা উল্লেখ করে ওমর সানী বলেন, ‘বংশের মানুষের কাছ থেকে চলে আসাটা অনেক কষ্টের। বড় দাদা, চাচার কবর জিয়ারত করলাম। অনেকেই আছেন অনেকেই নেই- এইভাবেই জীবন বয়ে যায়। একদিন আমিও থাকব না, আল্লাহ আমাদের সবাইকে হেফাজত করুন।’

নাড়ির টানে বাবার ভিটায় গিয়ে ভক্তদের প্রশংসা কুড়াচ্ছেন ওমর সানী। মাসুদ আহমেদ লিখেছেন, ‘শেকড় বড়ই কঠিন অনুভব, অনুভূতির জায়গা।’ মোজোম্মেল হোসেন লিখেছেন, ‘রক্তের টান একটা বিশাল ব্যপার! এটাকে অস্বীকার করার উপায় নেই। খুব ভালো লাগলো।’

হাফিজ নামে একজন লিখেছেন, ‘আপনি আপনার গ্রামের বাড়ি ঘুরে বেড়াচ্ছেন তা দেখে ভালো লাগছে। আপনার প্রতি শ্রদ্ধা, সালাম রইলো।’ এমন অনেক মন্তব্য শোভা পাচ্ছে ওমর সানীর কমেন্ট বক্সে।

নব্বইয়ের দশকের ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ওমর সানী। দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে রুপালি জগতে তার পথচলা। তার অভিনীত অসংখ্য ব্যবসাসফল সিনেমা এখনো দর্শক মনে গেঁথে আছে।

১৯৬৯ সালের ৬ মে জন্মগ্রহণ করেন ওমর সানী। তার জন্ম, শৈশব, কৈশোর কেটেছে পুরাণ ঢাকার জিঞ্জিরা এবং কালীগঞ্জে। কিন্তু তার বাবার পৈতৃক নিবাস বরিশালের গৌরনদী উপজেলার মহিশা শরিকল গ্রামে। গত ১৩ আগস্ট বাবার বংশের আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে মহিশা শরিকল গ্রামে ছুটে গিয়েছিলেন ওমর সানী।

সেখানে বসবাসরত আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে সময় কাটান ওমর সানী। আর এ মুহূর্ত ফ্রেমবন্দি করতেও ভুল করেননি। তারই কিছু ছবি নিজের ফেসবুকে শেয়ার করেছেন এই অভিনেতা।

এ বিষয়ে ওমর সানী বলেন, ‘বাবার দেশ, বংশ, আত্মীয় বলে কথা। সবকিছু মিলিয়ে আমার সফর সঙ্গী হয়েছিলেন ‘ওমর সানী ফ্যান ক্লাব’-এর প্রেসিডেন্ট কিরন খান, সেক্রেটারি এস কে সুমন সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদী, আর হীরা।’

আত্মীয়-স্বজনদের কাছ থেকে বিদায় নেওয়া কষ্টের। তা উল্লেখ করে ওমর সানী বলেন, ‘বংশের মানুষের কাছ থেকে চলে আসাটা অনেক কষ্টের। বড় দাদা, চাচার কবর জিয়ারত করলাম। অনেকেই আছেন অনেকেই নেই- এইভাবেই জীবন বয়ে যায়। একদিন আমিও থাকব না, আল্লাহ আমাদের সবাইকে হেফাজত করুন।’

নাড়ির টানে বাবার ভিটায় গিয়ে ভক্তদের প্রশংসা কুড়াচ্ছেন ওমর সানী। মাসুদ আহমেদ লিখেছেন, ‘শেকড় বড়ই কঠিন অনুভব, অনুভূতির জায়গা।’ মোজোম্মেল হোসেন লিখেছেন, ‘রক্তের টান একটা বিশাল ব্যপার! এটাকে অস্বীকার করার উপায় নেই। খুব ভালো লাগলো।’

হাফিজ নামে একজন লিখেছেন, ‘আপনি আপনার গ্রামের বাড়ি ঘুরে বেড়াচ্ছেন তা দেখে ভালো লাগছে। আপনার প্রতি শ্রদ্ধা, সালাম রইলো।’ এমন অনেক মন্তব্য শোভা পাচ্ছে ওমর সানীর কমেন্ট বক্সে।

About admin

Check Also

প্রায় ৩৩ বছর ধরে নিজের বাড়ি মনে করে স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে সমগ্র রায়গঞ্জ শহরকে পরিচ্ছন্ন করেন এই বৃদ্ধ!

আমাদের আশেপাশের পরিবেশের চোখ রাখলে আপনারা এমন অনেক ব্যক্তি দেখতে পারবেন যারা ক্রমাগত পরিবেশকে নানান …

Leave a Reply

Your email address will not be published.